Mahfuzur Rahman Manik
বইপত্র

রোহিঙ্গা সংকট : তৃতীয় নয়ন
অনুবাদ- মাহফুজুর রহমান মানিক
প্রকাশনী- ঐতিহ্য
প্রচ্ছদ- ধ্রুব এষ
প্রথম প্রকাশ : মার্চ ২০২২
মলাট মূল্য- ১৬০ টাকা

রােহিঙ্গা সংকট : তৃতীয় নয়ন একটি অনুবাদ গ্রন্থ। এটি মাহফুজুর রহমান মানিকের প্রথম একক গ্রন্থ। বইটিতে স্থান পেয়েছে ১৬ টি লেখা। যা বিদেশী সংবাদমাধ্যমে প্রকাশ হয়। যাদের অধিকাংশই লেখক, সাংবাদিক, মানবাধিকার কর্মী এবং রাজনৈতিক। একটি লেখা রয়েছে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার; প্রকাশ হয়ে কম্বোডিয়ার খেমার টাইমসে।
প্রকাশিত লেখাগুলোর মাধ্যমে যেমন রোহিঙ্গা সংকটের ঘটনা প্রবাহ জানা যাবে, তেমনি বাংলাদেশ কীভাবে এগিয়ে এসেছে তার স্বরূপ বোঝা যাবে। যেমন কয়েকটি লেখার শিরোনাম, মিয়ানমারে সেনা অভ্যুত্থান রোহিঙ্গাদের জন্য দুঃসংবাদ, রোহিঙ্গাদের সমর্থনে জো বাইডেনের এগিয়ে আসা উচিত, বাংলাদেশ যেভাবে মিয়ানমারকে চাপে ফেলতে পারে, রোহিঙ্গাদের সম্মানজনক ও নিরাপদ জীবন নিশ্চিত করুন,
রোহিঙ্গা সংকট: বিশ্বের লজ্জাজনক নীরবতা ইত্যাদি।

বইটির ভূমিকা লিখেছেন সমকালে সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) মোজাম্মেল হোসেন (মঞ্জু)। বইটি বোঝার জন্য ভূমিকাটি গুরুত্বপূর্ণ। যার উল্লেখযোগ্য অংশ এখানে পত্রস্থ হলো।

সূচিপত্র- রোহিঙ্গা সংকট: তৃতীয় নয়ন

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের বাসিন্দা রোহিঙ্গাদের ভাগ্য বিপর্যয় সমকালীন ইতিহাসে সুবিশাল মানবিক সংকটে রূপ নিয়েছে। ব্রিটিশ-ঔপনিবেশিক শাসনমুক্ত হওয়ার পর প্রাকৃতিক সম্পদপূর্ণ দেশটি স্বল্পকাল গণতন্ত্রে চর্চা করেছিল; এরপর অর্ধশতাব্দীকাল সামরিক স্বৈরশাসনে পিষ্ট ও জাতিগত দ্বন্দ্ব-সংঘাতে অভ্যন্তরীণ গৃহযুদ্ধে ক্ষতবিক্ষত হয়। এর মধ্যে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী সর্বাধিক নিপীড়িত। এক পর্যায়ে নাগরিকত্বহীন, ভোটাধিকারহীন নিজ দেশে পরবাসীর জীবনক্লেশ তাদের। বিভিন্ন সময়ে অনেকে উদ্বাস্তু হয়ে প্রতিবেশী বাংলাদেশে এসেছে, কিছু কিছু ফিরে গেছে। অবশেষে ২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট রাখাইনে সেনাবাহিনী ও উগ্র সাম্প্রদায়িক মহলের জাতিগত নির্মূল অভিযানতুল্য নৃশংস আক্রমণে জীবন বাঁচাতে স্রোতের মতো রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ-গিু-যুবা-বৃদ্ধ জঙ্গল-পাহাড়-নদী-প্রান্তর ডিঙিয়ে শরণার্থী হয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করে এবং পরিণামে কক্সবাজার জেলায় তৈরি হয় বিশ্বের বৃহত্তম শরণার্থী শিবির, সরকারি-বেসরকারি হিসাবের গড়েও অন্তত ১০ লাখ, যাদের স্বাভাবিক নিয়মে বংশবৃদ্ধি হচ্ছে।
সূচনা থেকে রোহিঙ্গা সংকট ও বাংলাদেশের প্রতি বিশ্বের সংবাদমাধ্যমের কম-বেশি মনোযোগ রয়েছে। একটি অন্যতম জাতীয় সংবাদপত্র হিসেবে দৈনিক সমকাল নিজস্ব প্রতিবেদন ও দেশের বিশেষজ্ঞ-বিশেম্লষকদের লেখা প্রকাশের পাশাপাশি বিদেশি ও আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে এ বিষয়ে প্রকাশিত বিশেম্লষণাত্নক খবর, পর্যবেক্ষণ ও মতামত প্রকাশ করে সমকাল পাঠকদের অবহিত রেখেছে। গত পাঁচ বছর ধরেই সম্পাদকীয় পাতায় প্রকাশের জন্য লেখাগুলো প্রধানত অনুবাদ করেছেন সম্পাদকীয় বিভাগের সহ-সম্পাদক মাহফুজুর রহমান মানিক। এর পরিসর তাকে উদ্বুদ্ধ করেছে অনুবাদিত নির্বাচিত লেখাগুলো দুই মলাটের মধ্যে সংকলিত করার। তার ফল এই বই ‘রোহিঙ্গা সংকট : তৃতীয় নয়ন’। লেখক তালিকায় অন্তর্ভুক্ত আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন মিডিয়ার সাংবাদিক ও বেসরকারি স্বাধীন সংস্থার পর্যবেক্ষক-গবেষকদের কয়েকজন বাংলাদেশে এসেছেন, রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবির দেখেছেন। নানা দৃষ্টিকোণ থেকে তারা সংকট এবং মিয়ানমার, বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক মহলের ভূমিকাকে দেখেছেন, সমাধানসূত্র খুঁজেছেন। এই তৃতীয় নয়নে দেখা, তথ্য-উপাত্তের সমাহার ইচ্ছানিরপেক্ষভাবে যে বৈশ্বিক মানবিক সংকটে আমরা জড়িয়ে পড়েছি, তার স্বরূপ বুঝতে আমাদের আরেকটু সাহায্য করবে।

বইটির ভূমিকার পরই রয়েছে আনুবাদকের কথা। অনুবাদক হিসেবে মাহফুজুর রহমান মানিকের নাতিদীর্ঘ প্রবন্ধের একটি অংশ-

বর্তমান সময়ে যখনি রোহিঙ্গা বিষয়টি উচ্চারিত হয় তার সঙ্গে অবধারিতভাবে বাংলাদেশ প্রসঙ্গও চলে আসে। গ্রন্থটিতে স্থান পাওয়া প্রায় প্রতিটি লেখায়ও সেভাবেই বাংলাদেশ প্রসঙ্গ এসেছে। গ্রন্থটিতে প্রকাশিত লেখাগুলোর মাধ্যমে তাই বাংলাদেশ সম্পর্কে বিদেশিদের মতও উঠে আসছে। রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে বাংলাদেশ যে উদার মানসিকতার পরিচয় দিয়েছে সে বিষয়টিও লেখকরা তুলে ধরেছেন। এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার লেখক বিদেশি হলেও একটি লেখা বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন কম্বোডিয়া সফর করেন তখন খেমার টাইমসে একটি নিবন্ধ লিখেন। তার ওই সফরটি ২০১৭ এর শেষ দিকে হয় বলে স্বাভাবিকভাবেই রোহিঙ্গাদের বিষয়টিও গুরুত্বের সঙ্গে আলোচিত হয়।
গ্রন্থটি গবেষকদের তো বটেই সাধারণ পাঠকদেরও উপকারে আসবে। বিশেষ করে যারা রোহিঙ্গা সংকটটি বিদেশিদের দৃষ্টিতে দেখতে চান; যারা বাংলাদেশের ব্যাপারে বিশ্বের মনোভাব বুঝতে চান; যারা রোহিঙ্গা সংকটটির স্বরূপ বুঝতে চান এমনকি যারা মনে করে রোহিঙ্গা সংকটের একটা দলিল আপনার কাছে থাকুক- এ গ্রন্থটি নি:সন্দেহে সে প্রয়োজনও মেটাবে।

বইটির প্রাপ্তিস্থান:
১. একুশে বইমেলা ২০২২ এর ঐতিহ্যের প্যাভিলয়ন-৩৫
২. অনলাইন অর্ডার : রকমারি
৩. ঐতিহ্যের সারাদেশের নির্বাচিত বিক্রয়কেন্দ্র
৪. প্রয়োজনে লেখকের সঙ্গে যোগাযোগ: mahfuz.manik@gmail.com

One comment on “বইপত্র”